হাইব্রীড পেঁপে বীজ

পেপে বীজ

হাইব্রীড পেঁপে বীজ

পেঁপে বিশ্বের অন্যতম প্রধান ফসল। বাংলাদেশে পেঁপে খুবই জনপ্রিয় ও গুরুত্বপূর্ণ। হাইব্রীড পেঁপের কতগুলো বৈশিষ্ট্য রয়েছে- প্রথমত এটা স্বল্প মেয়াদী, দ্বিতীয়ত ইহা কেবল ফলই নয় সব্জী হিসেবেও এর ব্যপক ব্যবহার রয়েছে, তৃতীয়ত পেঁপে অত্যন্ত সুস্বাদু, পুষ্টিকর এবং ঔষধী গুণ সম্পন্ন।পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি ও আয়রন বিদ্যমান। কাঁচা পেঁপেতে পেপেইন নামক হজমকারী দ্রব্য থাকে।

রেড লেডি হাইব্রিড পেঁপে জাতের বৈশিষ্ট্য

  • এটি তাইওয়ানের উচ্চ ফলনশীল বামন প্রজাতির পেঁপে
  • রেড লেডি জাতের প্রত্যেক টি গাছে পেঁপে ধরে ।
  • রেড লেডি জাতের পেঁপে গাছ সর্বচ্চো ১০ ফিট হয়।
  • গাছের উচ্চতা ৬০-৮০ সেমি হলে ফল ধরা শুরু হয়।
  • প্রতিটি গাছে ৫০-১২০ পর্যন্ত ফল ধরে।
  • ৫-৬ মাসের মধ্য ফুল আসে এবং প্রথম ফল পাওয়া যায় ৭-৯ মাসের মধ্য।
  • এই জাতের পেঁপে গুলি বেশ বড়।
  • ফলের রং লাল-সবুজ।
  • এক একটি ফলের ওজন ১.৫ থেকে ২ কেজি।
  • ফলের মাংস বেশ পুরু, গাঢ় লাল রঙের, স্বাদেও বেশ মিষ্টি ও সুগন্ধিযুক্ত।
  • কাঁচা ও পাকা উভয়ভাবে বাজারজাত করা যায়।
  • এই জাতের পেঁপে পাকা অবস্থায় সহজে নষ্ট হয় না। ফলে দূর দুরান্তে সহজেই বাজারজাত করা যায়।

এই জাতের পেঁপের জীবনকাল ২ বছরের অধিক।

বীজের হার

প্রতি গ্রামে বীজের সংখ্যা ৬০-৭০টি। হেক্টর প্রতি ৭০-১০০ গ্রাম বীজের প্রয়োজন। সে হিসেবে ৩০০০-৩২০০ চারা দিয়ে ১ হেক্টর জমিতে পেঁপে চারা লাগানো যায়। বীজের অংকুরোদগমনের হার ৭৫-৯৫% ।

পেপে গাছের পরিচর্যা

বাগান সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। গাছের গোড়া থেকে আগাছা তুলে ফেলে দিতে হবে। গাছের গোড়ার মাটি কোদাল দিয়ে হালকা করে দিতে হবে। গাছে অতিরিক্ত ফল ধরলে কিছু ফল ছিড়ে নিয়ে হালকা করে দিলে, বাকি ফল গুলো বড় হওয়ার সুযোগ পাবে। পেঁপে গাছে বিভিন্ন হরমোন প্রয়োগ করে বেশ সুফল পাওয়া যায়।